Wednesday, 4 December 2019

শাল পাতার ব্যাবসার বর্তমান পরিস্থিতি - পচিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার শাল পাতার ব্যবসা



আমি একজন পেশায় প্রকল্প সমন্বয়কারী ( project coordinator ) কিছুদিন আগে আমি একটা কোম্পানির হয়ে একটা প্রজেক্ট হাতে পেলাম যেখানে আমাকে শাল পাতার থালা, বাটি বানানোর প্রকল্প বানিয়ে গ্রামের লোকজন কে রোজগারের ব্যাবস্তা করে দিতে হবে তাতে আমার প্রথম কাজ হলো সেই সব জায়গা তে যাওয়া যেখানে শাল পাতার থালা বা বাটির ব্যবসা হয়ে থাকে আমি প্রথম গেলাম ঝাড়গ্রাম


প্রথমেই জানিয়ে রাখা ভালো যে - আমি যে কোম্পানির হতে কাজ করছি সেটা একটা NGO , অবশ্য বেশ কয়েক বছর ধরেই সেই কোম্পানি জঙ্গলের গ্রামের বেশ কিছু প্রকল্প চালিয়ে যাচ্ছে আমার তাতে একটা সুবিধা হয়েছে আমাকে নতুন করে সেই গ্রামের লোক-জন এর কাছে পরিচয় দিতে হবে না  


আমি যে যে জায়গা তে গিয়েছিলাম সেগুলো হলো মানিকপাড়া , লোধাশুলি এবং গিধনি । সেখানকার গ্রামবাসী দের সাথে কথা বলে জানতে পারি - এই শাল পাতার থালা বা বাটি ব্যবসা আগে অনেক ভালো ছিলো । এখন আর এই ব্যাবসায় কোনো লাভ হয়ে থাকে না । তার কারণ জানতে চাইলাম - তাদের মোতে বর্তমানে থার্মোকল বা কাগজের থালা এসে যাবার জন্য কেউই এই শালপাতা ব্যাবহার করতে চাইছে না । এই কথা বা ব্যবসা না হবার কারণ আমি একাধিক SHG Group এর কাছ থেকে পেলাম । আমি যে যে গ্রামে গিয়েছিলাম সেখানে বর্তমান আধুকিক যুগের প্রভাব খুব কমই পড়েছে - যে কারণে আমি এমন একজনকে খুঁজতে লাগলাম যে গ্রামে থেকেও বর্তমান যুগের সাথে ওয়াকিবহাল । তার জন্য আমাকে সাহায্য করলো আমার এক সহকারী বন্ধু উদয় মাহান্ত । যার বাড়ি ঝাড়গ্রাম থেকে ২৫ কিলোমির দূরে কিন্তু সে কলকাতার এক বোরো সোনাস্থার সাথে যুক্ত ।


Sunday, 27 October 2019

ভার্মিকম্পোস্ট ব্যাবহারের উপকারিতা (Vermicompost Benefits)


ভার্মিকম্পোস্ট ব্যাবহারের উপকারিতা

বর্তমানে ভার্মিকম্পোস্ট আর চাহিদা প্রচুর । কিন্তু প্রজনের অনেক কমই আমরা উৎপাদন করতে পারি । ভার্মিকম্পোস্ট যাকে চলতি কোথায় কেঁচো সার বলে থাকে। এই সারের উপকারিতা এখন চাষীরাও খুব ভালো করে বুজতে পারছে । এখনথেকে ১৫ বছর আগে আমাদের কৃষি বিজ্ঞানী রা জানতে পারছিলেন আগামী দিনগুলো চাষের পক্ষ খুবই খারাপ হতে চলেছে । চাষী রা দ্রুত সব্জি উৎপাদন বা একই জমিতে একাধিক বার সবজি ফোলানোর জন্য রাসায়নিক সার ব্যবহার করে থাকেন । এই রাসায়মক সার  অধিক মাত্রায় ব্যবহার করার ফলে চাষের জমির যে ক্ষতি হয়েছে অপরিসীম ।

ভার্মিকম্পোস্ট বাবহারের উপকারিতা যে কি তা জানানোর জন্য এখন সরকার অনেক রকম পদ্ধক্ষেপ নিয়ে চলেছে । মাটির বন্ধু হলো কেঁচো । একই জমিতে বারবার বেশি  পরিমানে দ্রুত ফসল বা সব্জি ফোলানোর জন্য চাষী রা যে রাসায়নিক সার ব্যাবহার করছে তার ফলে জমির সব কেঁচো মোরে যাচ্ছে । সেই কারনে জমির স্বাভাবিক উৎপাদন ক্ষমতাও হ্রাস পাচ্ছে । এর ফল স্বরূপ বর্তমানে, যে ফসল উৎপাদন করতে এখন থেকে ১৫-২০ বছর আগে চাষীরা খুব সামান্য পরিমানে গোবর সার ব্যাবহার করলেই হয়ে যেতো , এখন তা আর সম্ভব হয়ে উঠছে না । তার কারণ হলো চাষের জমির স্বাভাবিক উর্বর ক্ষমতা পুরোটাই প্রায় চলে গাছে রাসায়নিক সার ব্যাবহার এর ফলে ।




Wednesday, 23 October 2019

কেঁচো সার বানানোর সহজ পদ্ধিতি - সহজ পদ্ধতিতে কেঁচো সার বা ভার্মিকম্পোস্ট বানিয়ে রাসায়নিক সার ব্যাবহার বন্ধ করুন


কেঁচো সার বানানোর সহজ পদ্ধিতি - সহজ পদ্ধতিতে কেঁচো সার বা ভার্মিকম্পোস্ট বানিয়ে রাসায়নিক সার ব্যাবহার বন্ধ করুন 

বর্তমানে কেঁচো সার এর চয়িদা প্রচুর। আমাদের দেশের মোট চয়িদার মাত্র ৩ ভাগ সার আমরা বর্তমানে উৎপাদন করতে পারছি । সেই কারণে অনেক ছোট এবং বড়ো Organizarion এগিয়ে এসেছে এই কেঁচো সার বানানোর জন্য । অনেক NGO এবং Government Organization বিনা পয়সায় এই কেঁচো সার বানানোর পদ্ধিতি শিখিয়ে থাকে । যার ফোন চাষীরাও তাদের প্রয়োজনে সার বাবানোর পদ্ধিতি শিখে নিজেদের প্রয়োজন মেটাচ্ছে । কিন্তু তা সত্তাও তার চাহিদা কোনো অংশে কম হয়ে থাকে না ।

আমার Organization এর নাম CHINPACK (চিনপাক ) । আমার নিজের কিছু জমি আছে । সাি কারণে আমি নিজেই এই কেঁচো সার বানাই । আমি গত বছর কল্যাণী ইউনিভার্সিটি থেকে এই কেঁচো সার বানানোর (Vermicompost making) পদ্ধিতি শিখেছি । তার পরেই আমি এই সার বানানোর কাজ করি । সেই কাজ করতে গিয়ে আমি অনেক সমস্যার সম্মুখীন হই । যে সমস্যা গুলো কখনই কোনো organization বলবে না বা শেখাবে না । Practical Experience বা ব্যবহারিক অভিজ্ঞাতা থেকেই তা শেখা সম্ভব ।
এই পোস্ট বা লেখা টা পড়ার আগে - আমি বলতে চাই এই টা কিন্তু কোনো বৈজ্ঞানিক পদ্ধিতি নয় , এবং যারা এই কেঁচো সার ব্যবসা বাণিজ্যিক পদ্ধিতি তে বানাতে চান তারা এই ভাবে প্রথম বার বানিয়ে অভিজ্ঞাতা করে নিতে পারেন । কারণ কেঁচো সার উৎপাদন এমন একটা ব্যবসা যা উচ্চ মানের সার বাণজ্যিক পদ্ধিতে অধিক উৎপাদন করা প্রায় সম্ভব নয় বললেই চলে - যা আমার নিজের ব্যবসা থেকে আমি বুজলাম ।