Wednesday, 4 December 2019

শাল পাতার ব্যাবসার বর্তমান পরিস্থিতি


শাল পাতার ব্যাবসার বর্তমান পরিস্থিতি

আমি একজন পেশায় প্রকল্প সমন্বয়কারী ( project coordinator ) কিছুদিন আগে আমি একটা কোম্পানির হয়ে একটা প্রজেক্ট হাতে পেলাম যেখানে আমাকে শাল পাতার থালা, বাটি বানানোর প্রকল্প বানিয়ে গ্রামের লোকজন কে রোজগারের ব্যাবস্তা করে দিতে হবে তাতে আমার প্রথম কাজ হলো সেই সব জায়গা তে যাওয়া যেখানে শাল পাতার থালা বা বাটির ব্যবসা হয়ে থাকে আমি প্রথম গেলাম ঝাড়গ্রাম




প্রথমেই জানিয়ে রাখা ভালো যে - আমি যে কোম্পানির হতে কাজ করছি সেটা একটা NGO , অবশ্য বেশ কয়েক বছর ধরেই সেই কোম্পানি জঙ্গলের গ্রামের বেশ কিছু প্রকল্প চালিয়ে যাচ্ছে আমার তাতে একটা সুবিধা হয়েছে আমাকে নতুন করে সেই গ্রামের লোক-জন এর কাছে পরিচয় দিতে হবে না  


আমি যে যে জায়গা তে গিয়েছিলাম সেগুলো হলো মানিকপাড়া , লোধাশুলি এবং গিধনি । সেখানকার গ্রামবাসী দের সাথে কথা বলে জানতে পারি - এই শাল পাতার থালা বা বাটি ব্যবসা আগে অনেক ভালো ছিলো । এখন আর এই ব্যাবসায় কোনো লাভ হয়ে থাকে না । তার কারণ জানতে চাইলাম - তাদের মোতে বর্তমানে থার্মোকল বা কাগজের থালা এসে যাবার জন্য কেউই এই শালপাতা ব্যাবহার করতে চাইছে না । এই কথা বা ব্যবসা না হবার কারণ আমি একাধিক SHG Group এর কাছ থেকে পেলাম । আমি যে যে গ্রামে গিয়েছিলাম সেখানে বর্তমান আধুকিক যুগের প্রভাব খুব কমই পড়েছে - যে কারণে আমি এমন একজনকে খুঁজতে লাগলাম যে গ্রামে থেকেও বর্তমান যুগের সাথে ওয়াকিবহাল । তার জন্য আমাকে সাহায্য করলো আমার এক সহকারী বন্ধু উদয় মাহান্ত । যার বাড়ি ঝাড়গ্রাম থেকে ২৫ কিলোমির দূরে কিন্তু সে কলকাতার এক বোরো সোনাস্থার সাথে যুক্ত ।

উদয় আমাকে নিগলো এক গ্রামবাসীর কাছে যারা গত ২০ বছর ধরে শাল  পাতার ব্যবসা করে চলেছে । তার বাড়ি গিয়া আমি তার সাথে ৩ ঘন্টা কথা বললাম এবং তার ঘরে পাতা থেকে থালা বাবানোর মেশিন দেখলাম ।

  •   বর্তমান এ শাল পাতার ব্যবসা খারাপ কোনো?

লোধাশুলির দুর্গেশ মাহাতো (আমাদের SHG নয় ), মানিক পাড়ার মাদার টেরেসা এবং জগদ্ধাত্রী SHG র মতে ২০০৯ - ২০১০ এ যে মাওবাদী প্রবলেম হয়েছিল তার পর থেকে কলকাতার কোনো wholesaler ঝাড়গ্রাম এ শালপাতার থালা কিনতে আসে না ।
  • বছরে  কি মাস এই সল্ পাতার ব্যবসা চলে বর্ষা এবং শীত  কালে এই সল্ পাতার ব্যবসা বন্ধ থাকে 
·         বর্তমান শাল  পাতার থালার ব্যাবসার ধরণ:
. মহিলা দের একটি গ্রুপ জঙ্গল থেকে পাতা সংগ্রহ করে তার পর কাঠি লাগিয়ে শুকাতে দায়ে
  . যে যে SGH গ্রুপ এর  কাছে সেলাই মেশিন  আছে তারা সেই  কাঠি পাতা কিনা নায়ে এবং দুটো করে কাঠি পাতা একসাথে করে সেলাই করে
   . সেই সেলাই করা পাতা কিনা নিয়ে যায় কিছু প্রোপ্রাইটর শিপ কোম্পানি বা SHG group  যাদের কাছে থালা বানানোর dyce মেশিন আছে
   . ঝাড়গ্রাম বানানো থালার অধিকাংশ তাদের লোকাল বাজার বিক্রি হয়ে যায় যারা থালা বানায় তারাই প্লাস্টিক প্যাক করে এবং LDP বস্তা করে বাজার নিয়ে যায়
   . গিদনি তে শাল  পাতার থালার ব্যবসা ঝাড়গ্রাম এর থেকে ভালো হয়  
   . গিদনি SHG গ্রুপ কেবল কাঠি পাতাই  সেলাই করে গিদনি তে বেশ কয়েক জন মহাজন আছেন যারা ঝাড়গ্রাম থেকে কাঠি পাতা কিনে  গিদনির SHG গ্রুপ দিয়া সেলাই করিয়ে নিয়ে থালা বানায়
   . বর্তমান ঝাড়গ্রাম বা গিধনি অঞ্চলে শাল  পাতার থালার ব্যাবসা খারাপ হবার আর একটি কারণ পাতার কোয়ালিটি
   . গিধনির মহাজন ............. মাহাতোর মতে পাহাড়ি পাতার কোয়ালিটি অনেক ভালো ঝাড়গ্রাম এর পাতার থেকে পাহাড়ি পাতা বলতে বোঝা যায় ওডিশার শাল  পাতা
   . যেহেতু সেলাই পাতা করতে দুটো কাঠি পাতা একসাথে করতে হয় তাই তারা একটা ঝাড়গ্রাম এর কাঠি পাতা দেয় আর একটা ওডিশার 
চকচকে পাতা দিয়ে সেলাই করে থালা সময় পাহাড়ি পাতা উপর রেখে dyce করে
   ১০. গিধনির মহাজন ............... মাহাতোর প্রধান বাজার দিল্লী , উত্তর প্রদেশ এবং বিহার

শাল পাতার ব্যাবসার বর্তমান পরিস্থিতি 

শাল পাতার ব্যবসা বর্তমানে খারাপ এই কথা সত্য - কিন্তু আগামী কিছুদিনের মধ্যে এই ব্যবসা খুব ভালো হতে চলেছে এবং পশ্চিমবঙ্গে এক নতুন মাত্রা আনতে চলেছে । 

0 comments:

Post a Comment